৪০ বছরে সর্বোচ্চ দাম পাচ্ছেন কৃষক, দুশ্চিন্তায় সরকার

0
98

পপুলা২৪নিউজ ডেস্ক :
ধানের দাম নিয়ে কৃষকের বরাবর যে অভিযোগ, এবার তা নেই। চার দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ দাম পাচ্ছেন তারা। ধানের প্রকারভেদে কুইন্টালপ্রতি সর্বোচ্চ আড়াই হাজার টাকা দামেও বিক্রি হচ্ছে ধান। -বনিকবার্তা
এ নিয়ে খুশি ধান আবাদের সঙ্গে যুক্ত কৃষকরা। তবে ধানের মূল্যবৃদ্ধির সমান্তরালে বাড়ছে চালের দামও। গত বছরের মে মাসে সব ধরনের চালের যে গড় দাম ছিল, গতকালের হিসাবে তা দেড় গুণের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। চালের দামের এ ঊর্ধ্বগতি দুশ্চিন্তায় ফেলেছে সরকারকে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য মতে, দেশে ২০০৬-০৭ অর্থবছরে সব ধরনের ধানের দামই কুইন্টালপ্রতি ১ হাজার টাকার নিচে ছিল। গত অর্থবছর পর্যন্ত মানভেদে ধানের দাম কুইন্টালপ্রতি ১ হাজার ৫০০ থেকে ২ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। ২০১০-১১ অর্থবছরেই কেবল প্রতি কুইন্টাল উচ্চফলনশীল জাতের ধান ২ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। তবে সারা দেশে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ বছর বোরো মৌসুমে কৃষক পর্যায়ে প্রতি কুইন্টাল ধান ১ হাজার ৮৭৫ থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা ১৯৭৪ সালের পর যেকোনো অর্থবছরের তুলনায় বেশি।
বিশ্লেষকরা বলছেন, এ বছর আগাম বন্যায় হাওড় অঞ্চলে ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া দেশের উত্তর ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বেশকিছু জেলায়ও নেক ব্লাস্ট রোগের প্রাদুর্ভাবে ধান উৎপাদন কমেছে। এ অবস্থায় বেশি দাম দিয়ে ধান কিনে হলেও নিজেদের মজুদ নিশ্চিত করতে চাইছেন মিলার ও ব্যবসায়ীরা। এছাড়া উচ্চশুল্ক বজায় থাকায় ব্যবসায়ীরা চাল আমদানিতে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। ফলে বেশি দামে ধান বিক্রি করতে পারছেন কৃষকরা।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের (ডিএই) মহাপরিচালক কৃষিবিদ মো. গোলাম মারুফ বলেন, কৃষকরা ভালো দাম পেলে আগামী বছর বোরো আবাদে উৎসাহিত হবেন। কেননা বাড়তি জনসংখ্যার জন্য প্রতিনিয়তই তাদের ধান উৎপাদন বাড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হয়। উন্নত প্রযুক্তি ও সঠিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কৃষকদের উৎপাদন খরচ সহনীয় পর্যায়ে রাখায় ধান আবাদে আস্থা রাখছেন তারা।
জানা গেছে, চলতি বছর প্রতি কেজি বোরো ধান উৎপাদনে কৃষকের খরচ হয়েছে ২২ টাকা, এ খরচ আগের বছর ছিল ২০ টাকা ৭০ পয়সা। চলতি বছর প্রতি কেজি চাল উৎপাদনে খরচ হয়েছে ৩১ টাকা, যা গত বছর ছিল ২৯ টাকা। ধানের উৎপাদন খরচের ওপর ভিত্তি করেই এবারের বোরো মৌসুমে সরকার ২৪ টাকা কেজি দরে সাত লাখ টন ধান ও ৩৪ টাকা কেজি দরে আট লাখ টন চাল কিনবে। ২ মে শুরু হয়েছে সরকারের এ ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান। এটি চলবে আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত। তবে মিল মালিকরা এবার সরকারকে নির্ধারিত দামে ধান ও চাল দিতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না, যার প্রভাবে বাজারে মোটা চালের দামসহ চিকন চালের দাম কমছে না।
কৃষি বিপণন অধিদপ্তর (ডিএএম) সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে সরু চাল ৫২-৫৬, মাঝারি চাল ৪৮-৪৯ ও মোটা চাল ৪৫-৪৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। যদিও ২০১৬ সালের মে মাসে প্রতি কেজি সরু চালের গড় দাম ছিল ৪২ টাকা ৪৫ পয়সা, মাঝারি ৩৩ ও মোটা চাল ২৪ টাকা ৭১ পয়সা। অর্থাৎ চলতি বছরের মে মাসে সব ধরনের চালের গড় দাম গত বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে। ২০১৫ সালে প্রতি কেজি সরু চালের গড় দাম ছিল ৪২ টাকা ৮৯ পয়সা, মাঝারি ৩৪ দশমিক ৩৮ ও মোটা চাল ২৭ টাকা ৮২ পয়সা।
এ বিষয়ে সাবেক খাদ্য সচিব আবদুল লতিফ ম-ল বলেন, ধানের দাম বেশি হলে কৃষক খুশি। কিন্তু চালের দাম বেশি হলে ভোক্তারা অখুশি হন। ফলে ভোক্তা ও কৃষকের মধ্যে ভারসাম্য আনতে কৃষকের উৎপাদন খরচ যেমন কমাতে হবে, তেমনি বাজার স্থিতিশীল রাখতে চালও আমদানি করতে হবে।
ডিএই সূত্রে জানা গেছে, গতকাল পর্যন্ত চার জেলায় শতভাগ ধান কাটা হয়ে গেছে। এসব জেলা হচ্ছে— কক্সবাজার, যশোর, মেহেরপুর ও বরগুনা। এছাড়া প্রায় শতভাগ ধান কাটা হয়েছে এমন জেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে চুয়াডাঙ্গা, পিরোজপুর, গোপালগঞ্জ ও ঝিনাইদহ। আর ৯০ শতাংশের ওপরে ধান কাটা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, কিশোরগঞ্জ, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও খুলনা বিভাগের অন্য সব জেলায়।
প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য অনুযায়ী, উচ্চফলনশীল ধান আবাদ বাড়ায় জেলায় বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। উপজেলা পর্যায়ে ধান কাটা শুরু হয়েছে। কোথাও কোথাও আগাম জাতের ধান কাটা-মাড়াই শেষে বিক্রিও হয়ে গেছে। ধান বেচাকেনা শুরু হয়েছে গাবতলী, সোনাতলা, শেরপুর, ধুনট, সারিয়াকান্দি, কাহালু, নন্দীগ্রাম, দুপচাঁচিয়া উপজেলাসহ কয়েকটি উপজেলায়। চলতি মৌসুমে বগুড়ায় বিভিন্ন জাতের ধান প্রতি মণ ৮৫০-৯৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে বি আর-২৮ শুকনা ধান প্রতি মণ ৮৫০-৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বি আর-২৮ মোটা ধান বিক্রি হচ্ছে ৮২০-৮৫০ টাকায়। যদিও একই ধান গত বছর বিক্রি হয়েছে ৭০০-৭৫০ টাকায়।
বগুড়া ডিএইর উপপরিচালক প্রতুল চন্দ্র সরকার জানান, জেলায় ঝড়বৃষ্টিতে এবার ফসলের ক্ষতি হয়েছে সামান্যই। এমনিতেই জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ফলন হয়ে থাকে। এবারও আশা করছি ভালো ফলন পাওয়া যাবে। জেলায় এবার চাল আকারে ফলন পাওয়া যাবে প্রায় ৮ লাখ ৩৭ হাজার ২৫ টন।
দিনাজপুরে গতবার বোরো মৌসুমে মোটা ধান বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ৪৫০-৫০০ টাকায়। তবে এ বছর একই পরিমাণ ধান বিক্রি হচ্ছে ৭২৫-৮০০ টাকায়। ধানের বাড়তি দাম পাওয়ায় কৃষকরা বেশ খুশি।
দিনাজপুরের সদর উপজেলার বাঙ্গীবেচা গ্রামের কৃষক ওবাইদুর রহমান ও সাহিন হোসেন এবং গোপালগঞ্জ গ্রামের কৃষক আজিজুল ইসলাম জানান, ধান আবাদ করার সময় সারসহ বিভিন্ন পাওনা এবং পরিবারের জরুরি প্রয়োজন মেটাতে বাধ্য হয়েই কিছুটা কম দামে তাদের ধান বিক্রি করতে হয়েছে। বর্তমান দাম মৌসুমের শুরুতেই পাওয়া গেলে আরো বেশি লাভবান হতেন তারা।
নওগাঁয় তিন বছরের ব্যবধানে ধানের দাম বেড়েছে মণপ্রতি ৩০০-৪০০ টাকা। জেলার বিভিন্ন ধানের হাট ও মোকামে প্রতি মণ খাটো-১০ ও পারিজা জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে ৯০০ টাকায়। যদিও ২০১৫ সালের এ সময়ে খাটো-১০ ও পারিজা জাতের ধান প্রতি মণ ৫৫০-৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। গত বছরের এ সময়ে খাটো-১০ ও পারিজা জাতের ধান প্রতি মণ ৫০০-৫৫০ টাকায় কিনতে হয়েছিল মিলারদের।
এ বিষয়ে জেলা চালকল মালিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম জানান, মোকামে চালের ব্যাপক চাহিদা থাকায় বাজারে ধানের দাম বেড়েছে। ভালো মানের প্রতি মণ ধান হাজার টাকায়ও কেনাবেচা হচ্ছে। গত দুই বছর দেশে ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় দাম কম ছিল। তবে এবার বৈরী আবহাওয়ার কারণে আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বাজারে ধানের দাম অনেক বেশি।