সুনামগঞ্জে আমনের সর্বনাশে স্থানীয় জাত ‘নাভিজা’ বীজেই এখন ভরসা

0
67

নুর উদ্দিন, ছাতক (সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি,পপুলার২৪নিউজ:

সুনামগঞ্জে গত ১১আগস্ট থেকে সপ্তাহব্যাপী নামা পাহাড়ি ঢল ও বর্ষণে সরকারি হিসেবে তলিয়ে গেছে ৯হাজার ২২৩হেক্টর রোপা আমন জমি ও ১২শত হেক্টর বীজতলা নষ্ট হয়েছে। তবে বেসরকারি হিসেবে অন্তত ১৫হাজার হেক্টর জমির রোপা আমন ও ৪হাজার হেক্টর বীজতলা তলিয়েছে নষ্ট হয়। ফসল ও বীজতলা তলিয়ে নেওয়ায় এবং বিএডিসির কাছে আমনের কোন বীজ না থাকায় উদ্বিগ্ন কৃষি বিভাগ। তাই স্থানীয় কৃষকদের কাছে থাকা বিলম্বে ফলে স্থানীয় জাত ‘নাভিজা’ বীজই এখন কৃষি বিভাগের কাছে ভরসার নাম। পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে এই বীজ নতুন করে লাগানোর পরামর্শ দিচ্ছেন কৃষকদের সংশ্লিষ্টরা।
জানা যায়, জেলার সব উপজেলাতেই কম বেশি আমন চাষ হয়ে থাকে। তবে বেশি চাষ হয় সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক, দোয়ারাবাজার এবং বিশ্বম্ভরপুর  উপজেলায়। জেলায় দুই লাখ আমন চাষী রয়েছে। চলতি মওসুমে ৬১হাজার ৬৯৪হেক্টর জমিতে চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হলেও ঢল ও বর্ষণের আগ পর্যন্ত চাষ হয়েছে ২৭হাজার ৩৩৭হেক্টর। এর মধ্যে ১১আগস্ট থেকে ১৭আগস্ট পর্যন্ত নামা টানা ঢল ও বর্ষণে রোপনকৃত আমন জমি সম্পূর্ণ নিমজ্জিত হয়। রোপা আমনের জমির সঙ্গে বীজতলাও সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে। তাই আমনক্ষেত এবার পতিত থাকার আশঙ্কা করছেন কৃষক। কিছু সচ্ছল কৃষকের কাছে ‘নাভিজা’ বীজ থাকলেও ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের কাছে সেই বীজ নেই।
কৃষি বিভাগের সংশ্লিষ্টরা বলছেন বিলম্বে চাষ হয় দেশি প্রজাতির চিনাশাইল, নাজিরশাইল, মালতি, চেঙ্গের মুড়ি, কালোজিরা, চাপলাশ, বিরুইনসহ বেশ কিছু ধানের দেশি বীজ অনেক সচ্ছল কৃষকের সংগ্রহে রয়েছে। সেই বীজ লাগানো হলে অবশিষ্ট জমি ও নষ্ট হওয়া জমি আগামী ১৫সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রোপা আমন লাগানো যাবে। এতে ফলন কিছু কম হলেও কৃষকদের ক্ষতির মাত্রা কমবে।

ছাতক উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের হলদিউরা গ্রামের কৃষক সিরাজ উদ্দিন বলেন, এমন একের পর এক দুর্যোগের মুখে নিকট অতীতে কখনো পড়েনি এই অঞ্চলের কৃষক। হাওরের ধান-মাছ নষ্ট হওয়ার পর কৃষক স্বপ্ন দেখছিল আমন ধান দিয়ে কিছুটা ক্ষতি পুষিয়ে নিবে। কিন্তু সেটাও আর অবশিষ্ট রইল না।
‘হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও’ আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান বলেন, জেলার সম্পূর্ণ বোরো ফসল গত এপ্রিলে তলিয়ে গেছে। ফসলহারা কৃষক ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিল রোপা আমন চাষের মাধ্যমে। কিন্তু রোপা আমন ধান লাগানোর সাথে সাথেই বন্যায় সেই আশাও ভেসে গেছে।
সুনামগঞ্জ বিএডিসির সহকারি পরিচালক মো. আওলাদ হোসেন বলেন, আমাদের সুনামগঞ্জে বিএডিসির গুদামে কোন আমন ধানের বীজ নেই।
সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ জাহেদুল হক বলেন, বন্যায় প্রায় ৯হাজার হেক্টরেরও বেশি আমন জমি নষ্ট হয়েছে। বীজতলা নষ্ট হয়েছে ১২শ হেক্টর। ধানের পাশাপাশি বীজতলা ডুবে যাওয়ায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। কৃষকদের কাছে থাকা বীজ দ্রুত সময়ে লাগানো হলে নিমজ্জিত জমি ও অবিশষ্ট জমি চাষের আওতায় আনা সম্ভব।