সালমান ‘হত্যা’র বিচার না হলে আত্মহত্যার হুমকি নারী ভক্তের!

0
28
পপুলার২৪নিউজ ডেস্ক:

আত্মহত্যার হুমকি দেয়া নারী ভক্ত।
জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সালমান শাহ হত্যার বিচার না হলে এবার আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছেন এক নারী ভক্ত।

এ সংক্রান্ত চার মিনিটের একটি ভিডিও ইউটিউবে ভাইরাল হয়েছে। তবে নারীটির নাম পরিচয় জানা যায়নি।

ওই ভিডিওতে নারীকে বলতে শোনা যায়, ‘সালমান শাহ হত্যার বিচার না হলে আমি আত্মহত্যা করব। এর দায় নেবেন প্রধানমন্ত্রী।’

মূলত অমর নায়ক সালমান শাহের আত্মহত্যার রহস্য নিয়ে নতুন আলোচনা শুরু হয়েছে আমেরিকা প্রবাসী রুবির ভিডিও বার্তায়।

৭ আগস্ট তিনি এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘সালমান আত্মহত্যা করেননি, তাকে হত্যা করা হয়েছিল।’ এই হত্যার জন্য তিনি তার স্বামী, ভাই ও সালমান শাহের স্ত্রী সামিরা এবং তার পরিবারের প্রতি অভিযোগ করেন। প্রথম ভিডিও বার্তায় এমন দাবি করা হলেও ৯ আগস্ট আরেক ভিডিও বার্তায় সবকিছু অস্বীকার করেন রুবি।

তার এই রহস্যজনক আচরণে এবং ভিডিও বার্তার সূত্রে খুনিদের বিচারের দাবিতে ফুঁসে উঠেছেন সারাদেশের সালমান শাহের ভক্তরা। এ দাবিতে গতকাল যোগ হয়েছে অজ্ঞাত পরিচয় আরেক নারীর ভিডিও।

এই নারী তার ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘সালমান শাহ মারা যাওয়ার পর (১৯৯৬) সারাদেশে ৪০ জনের বেশি ছেলেমেয়ে আত্মহত্যা করেছিল। এখন নতুন করে সালমান শাহের মৃতু্যর বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে। রুবি নামের মহিলা সব জানে কে বা কারা সালমান শাহকে খুন করেছে। সালমান শাহ হত্যার বিচার না হলে আমি আত্মহত্যা করব। এর দায় নেবেন প্রধানমন্ত্রী। রুবির ভিডিওতে প্রমাণ হয় সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে। বিচার না হলে আমি আত্মহত্যা করে প্রমাণ করব যে, সালমানের ভক্তরা এখনও পৃথিবীতে আছে।’

ভিডিওতে ওই নারী আরও বলেন, ‘শুধু আমি না, পুরো পৃথিবীর মানুষ সালমান শাহ হত্যার বিচার চায়। বেশি কিছু বলতে পারছি না। আমি খুব নার্ভাস ফিল করছি। মাননীন প্রধানমন্ত্রী আপনি এর বিচার করুন। আপনিও তো ভাই হারা, বাবা হারা। আপনি এই কষ্টটা করেন। সালমান শাহের শ্বশুর কিভাবে সালমানকে নিয়ে খারাপ কথা বলে? প্লিজ এর বিচার করুন। কেন সালমানের খুনি প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে? কী অপরাধ ছিল আমাদের সালমানের? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বিচার করুন। নইলে আমি যে কোনো মূহুর্তে আত্মহত্যা করব।’

প্রসঙ্গত, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মৃত্যু হয় চিত্রনায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার ইমন ওরফে সালমান শাহর। সেসময় সালমানের বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী এ মৃত্যুর ঘটনায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করেন।

পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। আদালত আবেদনের প্রেক্ষিতে অপমৃত্যুর পাশাপাশি হত্যাকান্ডের অভিযোগটিও একসঙ্গে সিআইডিকে তদন্তেরর নির্দেশ দেয়।

১৯৯৭ সালের ৩ নভেম্বর আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয় সিআইডি। প্রতিবেদনে সালমানের শাহের মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হয়। সিআইডির ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে তার বাবা রিভিশন মামলা করেন।

২০০৩ সালের ১৯ মে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে পাঠান আদালত। এরপর দীর্ঘ এক যুগ ধরে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে ছিল।

২০১৪ সালের ৩ আগস্ট ঢাকার সিএমএম আদালতের কাছে জমা দেয়া প্রতিবেদনে আবারও সালমান শাহের মৃত্যুকে অপমৃত্যু হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

একই বছরের ২১ ডিসেম্বর সালমান শাহের মা বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেন এবং  ২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম জাহাঙ্গীর হোসেনের আদালতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করেন। এরপর আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য র‌্যাবের কাছে ন্যস্ত করেন।

২০১৬ সালের ১৯ এপ্রিল রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি র‌্যাবকে তদন্ত দেয়ার আদেশের বিরুদ্ধে মহানগর দায়রা জজ আদালতে একটি রিভিশন মামলা করেন। সর্বশেষ একই বছরের ২১ আগস্ট ঢাকার বিশেষ জজ-৬ এর বিচারক ইমরুল কায়েস রাষ্ট্রপক্ষের রিভিশন মঞ্জুর করেন এবং র‌্যাব মামলাটি আর তদন্ত করতে পারবে না বলে আদেশ দেন। এরপর থেকেই সালমান শাহ হত্যা মামলাটির তদন্ত ভার পিআইবিকে দেয়া হয়।