পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি খুব একটা খারাপ না: মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম

0
9

পপুলার২৪নিউজ প্রতিবেদক:পৃথিবীর সবদেশেই শেয়ারবাজারে কিছু সমস্যা হয়। আমাদের দেশেও হয়। কিছুদিন আগেও শেয়ারবাজারে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। তবে সেটা আশঙ্কাজনক না। শেয়ারবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি খুব একটা খারাপ না। এমতাবস্থায় বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করলে বড় ক্ষতি হবে না। সোমবার রাজধানীর ফারস হোটেলে অনলাইন বিজনেস পোর্টাল বিজনেসআওয়ার২৪.কম আয়োজিত ‘শিল্পায়নে আইপিও’র গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্ততায় তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা  এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম এ কথা বলেন।  মির্জ্জা আজিজ বলেন, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর দায়িত্ব কি তা বুঝে কাজ করতে হবে। এখন মাচেন্ট ব্যাংকগুলোকে নিজেদের কাজ অন্তর দৃষ্টি দিয়ে বিশ্লেষণ করা উচিত। কারণ পুঁজিবাজারে ভালো মৌলভিত্তির কোম্পানি আনতে তাদের ভূমিকা অনেক বেশি। তিনি বলেন, ভালো কোম্পানি আনার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনেরও (বিএসইসি) একটা ভূমিকা রয়েছে। সেটা হলো সমঝোতার ভিত্তিতে বাজারে কোম্পানি তালিকাভুক্ত করানো। তিনি আরও বলেন, কর ফাঁকি দেওয়া এবং ঋণ নিয়ে পরিশোধ না করার সুযোগ থাকার কারণে অনেক কোম্পানি বাজারে আসতে চায় না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেক হোল্ডাররা শেয়ারবাজারের মূল সমস্যা। প্রকৃতপক্ষে ডিমিউচ্যুয়ালাইজড এতো সহজ না। এতোটা সহজ হলে তো হতোই। তিনি আরও বলেন, ১০০টি কোম্পানি আইপিওতে আবেদন করেও ১টির অনুমোদন না পাওয়া দুঃখজনক। এক্ষেত্রে কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজার থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদনে সময়ক্ষেপণের কারণে ভালো কোম্পানি শেয়ারবাজারে আসছে না। তিনি বলেন, কোন ডায়নামিক উদ্যোক্তা শেয়ারবাজার থেকে ফান্ড সংগ্রহের জন্য ২ বছর অপেক্ষা করবে না। তাই ভালো কোম্পানিকে শেয়ারবাজারে আনার জন্য এই সমস্যার বিষয়টি গভীরভাবে চিন্তার প্রয়োজন।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা বলেন, কমিশন আগের চেয়ে দ্রুততম সময়ে আইপিও অনুমোদন দিচ্ছে। দেরি হওয়ার পেছনে কমিশনের চেয়ে ইস্যুয়ারদের নির্ভূল আবেদন করা জরুরী।