বিদ্যুৎ দাও, নইলে মুখে বিষ দাও

0
96

পপুলার২৪নিউজ, জেলা প্রতিনিধি:

‘বিদ্যুৎ দাও নইলে মুখে বিষ দাও’ শ্লোগানে ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলায় শতাধিক কৃষক ফসলী জমিতে অনশন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

শনিবার উপজেলার মাওহা ইউনিয়নে মাওহা বড়ইকান্দা গভীর নলকূল-২ কৃষক সমবায় সমিতির সদস্যরা ব্যতিক্রমী এ মানববন্ধন, ফসলী জমিতে অনশন ও বিক্ষোভ মিছিল করে।

কৃষকরা জানান, আদালতের নিষেধাজ্ঞা নেই, বিদ্যুৎ বিল বকেয়া নেই। তারপরও মাওহা বড়ইকান্দা গভীর নলকূল-২ কৃষক সমবায় সমিতি লিমিটেডের গভীর নলকূপে বিদ্যুৎ সংযোগ মিলছে না!

তারা জানান, বোরো মৌসুমের শেষ পর্যায়ে এসেও বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় এলাকার ৩৯১ জন কৃষকের প্রায় ২১৫ একর জমিতে এখনও চারারোপণ করতে পারছেন না। বীজতলায় চারা মারা যাচ্ছে। ফসলের মাঠ শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

বড়ইকান্দা গ্রামের মৃত রুস্তম আলীর ছেলে কৃষক মো. আল আমিন বলেন, ফসল না বাঁচলে আমরা বাঁচবো না-আমাদের মেরে ফেলুন, মুখে বিষ দিন।

তিনি জানান, এ গভীর নলকূপের অধীনেই আমার আড়াই একর জমি। এখানে ফসল না হলে দুই ছেলে আর স্ত্রীকে নিয়ে মৃত্যু ছাড়া উপায় নেই।

এই ব্যতিক্রমী সমাবেশে আল আমিনের ছেলে জয় বলেন, আমাদের বাঁচান।

একইভাবেই চার মেয়ে ও এক ছেলের বাবা আবদুর রাজ্জাক জানান, এক একর ২০ শতাংশ জমির গাছের চারা বীজতলায় লাল হয়ে মরে যাচ্ছে।

মাওহা বড়ইকান্দা গভীর নলকূল-২ কৃষক সমবায় সমিতির ম্যানেজার আবদুল মান্নান ফকির বলেন, এ সমিতির সদস্য সংখ্যা ৭৫ জন। তবে সেচে উপকারভোগীর সংখ্যা পাঁচ শতাধিক।

গৌরীপুর কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির এ আচরণ কখনও মেনে নেয়া যায় না।

এ দাবির সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান ফকির বলেন, ২৪ ঘন্টার মধ্যে বিদ্যুৎ সংযোগ না দিলে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ কে কৃষকের ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য করা হবে।

ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জেনারেল ম্যানেজার চলতি দায়িত্বে থাকা ডিজিএম প্রদীশ মন্ডল জানান, তাদের সকল কাগজপত্র দেখে দ্রুত সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কৃষকরা অবিলম্বে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের দাবিতে মাওহা বাজারে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এরপরেই কৃষকরা হাতে ধানের চারা নিয়ে চাষকৃত শুকনা জমিতেই শুয়ে ব্যতিক্রমী অনশন কর্মসূচী পালন করেন।

এ সময় সংগঠনের ম্যানেজার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান ফকিরের সভাপতিত্বে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক, আবদুর রাজ্জাক, ফজলুর রহমান, মো. আল আমিন, আবদুস সোবহান, বাবুল মিয়া, হলুদ মিয়া, আব্দুর রশিদ, ফজলুল হক, লিটন মিয়া, গণি মিয়া, মোজাম্মেল হক প্রমুখ।