বিএডিসি আলুবীজ বিদেশে রপ্তানি

0
111

নীলফামারী প্রতিনিধি,পপুলার২৪নিউজ:

বিএডিসি আলুবীজ বিদেশে রপ্তানি

বিএডিসি ব্যাপক সাফল্য এনেছে ভিত্তিবীজ আলু উৎপাদনে। বর্তমানে দেশের চাহিদা মিটিয়ে এক লাখ টন আলুবীজ রপ্তানি করতে পারছে দেশের বাইরে।

এতে বছরে ৪০০  কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে।গতকাল মঙ্গলবার নীলফামারীর ডোমার ভিত্তিবীজ আলু উত্পাদন খামারে প্রযুক্তির মাধ্যমে আলুবীজ উন্নয়ন, বর্ধিতকরণ, মাননিরূপণ ও প্রযুক্তি বিস্তার প্রকল্পের আওতায় আলু চাষিদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ সমাবেশে এসব তথ্য জানান বিএডিসির প্রকল্প পরিচালক (জীপ্রকৃবীউবমানিপ্র) ড. রেজাউল করিম।

ড. রেজাউল বলেন, “আগে আমরা নেদারল্যান্ডস থেকে প্রতিকেজি আলুবীজ ১৬০ টাকা দরে আমদানি করতাম। এখন মাত্র ৬০ টাকায় আমরা তার ছেয়েও ভালোমানের আলুবীজ দেশে উৎপাদন করছি টিস্যু কালচারের মাধ্যমে। এতে আলুর উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের চাহিদা পূরণ করে আমরা প্রতিবছর এক লাখ টন আলু রপ্তানি করতে পারছি। এতে আমাদের এখন ৪০০ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে।

বিএডিসির ডোমার ভিত্তিবীজ আলু উৎপাদন খামারে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণে বগুড়া, ঠাকুরগাঁও এবং রংপুর জেলার ৩৫০ জন কৃষক অংশ নেন। খামারের উপপরিচালক এনামুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএডিসির চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) মো. নাসিরুজ্জামান, সদস্য পরিচালক (বীজ ও উদ্যান) মো. মাহমুদ হোসেন, অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপক (বীজ) নুর মোহাম্মদ মণ্ডল, জীব প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষিবীজ উন্নয়ন,বর্ধিতকরণ, মান নিরূপণ ও প্রযুক্তি বিস্তার প্রকল্পের পরিচালক ড. মো. রেজাউল করিম, বিএডিসি রংপুরের উপপরিচালক নির্ম্মাল্য কুমার দাস প্রমুখ।

প্রকল্প পরিচালক ড. রেজাউল করিম জানান, টিস্যু কালচার প্রযুক্তির বীজ আলু উৎপাদন, সংগ্রহ ও সংরক্ষণ প্রযুক্তি, বীজ আলুর রোগবালাই ও পোকামাকড় শনাক্তকরণ ও দমন বিষয়ে কৃষকদের অবহিত করা হয়েছে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে। এ ছাড়া নতুন ছাড়কৃত জাতের আলুর আধুনিক উৎপাদন প্রযুক্তির বিষয়ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে চাষিরা মানসম্পন্ন বীজ আলু উৎপাদনে সক্ষম হবেন। এতে কৃষকপর্যায়ে মানসম্পন্ন বীজ আলু উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।

বিএডিসির চেয়ারম্যান মো. নাসিরুজ্জামান বলেন, “বিএডিসি রোগমুক্ত ও মানসম্পন্ন বীজ আলু উৎপাদন করে কৃষকদের মাঝে সরবরাহ করায়, দেশের গড় ফলন  প্রতি হেক্টরে ১৫ টনের স্থলে সাড়ে ১৯ মেট্রিকটনে উন্নীত হয়েছে। এতে ৪০০ কোটি টাকার  বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে। চলতি বছর বিএডিসির ২৮টি জোনে ৩০টি হিমাগারে ৩৩ হাজার মেট্রিকটন মানসম্মত প্রত্যায়িত আলুবীজ সংরক্ষণ করবে। ”