বাঁধ ভেঙে শেরপুরে অর্ধশতাধিক গ্রাম প্লাবিত

0
20
পপুলার২৪নিউজ জেলা প্রতিনিধি :
টানা দুই দিনের বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার পাহাড়ি নদী ভোগাইয়ের অন্তত ১৩টি স্থানে তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে। নদীর তীর গড়িয়ে প্লাবিত হচ্ছে চেল্লাখালী নদীর পানি।
এতে পৌরসভাসহ এ উপজেলার অন্তত অর্ধশত গ্রাম আকস্মিক বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। আজ থেকে পাহাড়ি নদী চেল্লাখালীর তীর উপচে বিপদসীমার উপর দিয়ে ঢলের পানি আশপাশের গ্রামে প্রবেশ করছে। এতে ফসলি জমি, ঘরবাড়ি, পুকুরের মাছসহ সবকিছুই বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।এছাড়াও অপর পাহাড়ি নদী ভোগাইয়ের নয়াবিল ইউনিয়নের হাতিপাগারে একটি, রামচন্দ্রকুড়া ইউনিয়নের মন্ডলিয়াপাড়া ও ভজপাড়ায় ২টি, নালিতাবাড়ী ইউনিয়নের নিচপাড়া ও খালভাঙ্গায় ৩টি, বাঘবেড় ইউনিয়নের শিমুলতলা এলাকায় ৩টি এবং পৌরসভার নিচপাড়ায় একটি, খালভাঙ্গায় একটি ও উত্তর গড়কান্দা এলাকার ২টি মিলে মোট ১৩টি স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙনের আশংকা রয়েছে আরো বেশকিছু এলাকায়। সবমিলে ভাঙনকবলিত নদী পারের পরিমাণ প্রায় হাজার মিটার ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে উপজেলার অন্তত ৮টি ইউনিয়ন আকস্মিক বন্যার কবলে পড়েছে। এসব এলাকার ফসলি জমি, বাড়ি-ঘর তলিয়ে গেছে। পুকুর গড়িয়ে ভেসে গেছে কোটি কোটি টাকার মাছ। পানির তোরে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে অসংখ্যা কাঁচা ও পাঁকা রাস্তা। বন্যা কবলিত হয়ে পড়ায় বেশকিছু বিদ্যালয়ে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বেশকিছু এলাকায় বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বিদ্যুত ব্যবস্থা। সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ।

এদিকে আজ উপজেলা প্রশাসন বন্যা কবলিত বেশকিছু এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তাৎক্ষণিকভাবে নিরূপণ করা হয়নি বলে জানানো হয়েছে।