পানি স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য খাতে সরকারের আচরণ পক্ষপাতমূলক

0
345

পপুলার২৪নিউজ, তোফাজ্জল হোসেন :

33২০০৬-০৭ অর্থবছরের তুলনায় চলতি বছর নিরাপদ পানি, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য আচরণ বিধি খাতে সরকারের বরাদ্দ বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের মেট্রোপলিটন শহরে অতি উচ্চ মাত্রায় পক্ষপাতমূলক। চলতি অর্থবছরের ঢাকা ওয়াসা ৬৯৫ কোটি থেকে এক হাজার ৫৮০ কোটি টাকা, খুলনা ওয়াসা ৩৩১ কোটি থেকে ৫২৪ কোটি টাকা, চট্টগ্রাম ওয়াসা ৬০৪ কোটি থেকে ৭৬৫ কোটি টাকা বাজেট বাড়ানো হয়েছে। যা গ্রাাম ও শহরের মধ্যে নিরাপদ পানি, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য আচরণ বিধি খাতের বৈষম্য ব্যাপক হারে বৃদ্ধি করতে পারে। ।
মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত ‘স্থানীয় সরকার বাজেট: পানি, স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য আচরণবিধি খাতে বরাদ্দ ও প্রত্যাশা’ শীর্ষক কর্মশালায় এসব তথ্য জানানো হয়। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওয়াটারএইড বাংলাদেশ ও ডরপ যৌথভাবে এই কর্মশালার আয়োজন করে।
ওয়াটারএইড বাংলাদেশের প্রধান নীতিনির্ধারক শামীম আহমেদ বলেন, নিরাপদ পানি, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য আচরণবিধি খাতে ঢাকা ওয়াসায় ৩৮ দশমিক ৪১ শতাংশ, চট্টগ্রাম ওয়াসায় ১৮ দশমিক ৬০ শতাংশ ও খুলনা ওয়াসায় ১২ দশমিক ৭৪ শতাংশ বাজেট বরাদ্দ দেওয়া হয়। মাত্র তিনটি বড় শহরের ওয়াসাকে এখাতে প্রায় ৭০ শতাংশ বাজেট বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। দেশের জন্য বরাদ্দ মাত্র ৩০ শতাংশ। সে ক্ষেত্রে হাওড়, চর, পাহাড়ী এলাকা ও গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ বরাদ্দের পরিমান খুবই নগণ্য।
‘স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের পানি ও স্যানিটেশন বাজেট উপজেলা অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক অপর ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন ডরপ এর প্রধান (গবেষণা, মূল্যায়ণ ও পরিবীক্ষণ) মোহাম্মদ যোবায়ের হাসান বলেন, বাংলাদেশে প্রতি বছর স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যহানিজনিত রোগের চিকিৎসা বাবদ ২৯৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়। এই খাতে সরকারের বরাদ্দের পরিমাণ একেবারেই কম। নিরাপদ পানি, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য আচরণ বিধি খাতে বরাদ্দ ৪ হাজার ১১৩ কোটি টাকা। মাথাপিছু বরাদ্দ ২৬৪ টাকা।
যোবায়ের হাসান বলেন, নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন খাতের বরাদ্দের সবচেয়ে বড় অংশ সরকারের কাছে থেকে আসে। তবে এই বরাদ্দের বেশিরভাগই সাধারণ মানুষ পর্যন্ত পৌঁছে না। চলতি অর্থবছরের ছয় উপজেলার ২৪টির মধ্যে মাত্র পাঁচটি ইউনিয়নের বরাদ্দ পৌঁছেছে। এমন পরিস্থিতিতে গ্রাম পর্যায়ে নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশনের উন্নয়নে বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানো সময়ে দাবি।
কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ। বিশেষ অতিথি ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব জুয়েনা আজিজ, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী খালেদা আহসান,অর্থ মন্ত্রণালয়েল যুগ্ন সচিব মো. এখলাসুর রহমান। ওয়াটারএইডইড বাংলাদেশ দেশীয় প্রতিনিধি ডা. মো. খায়রুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন র্ডপ’র প্রতিষ্ঠাতা ও গুসি আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বিজয়ী এএইচএম নোমান, বিআইডিএসের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. মঞ্জুর হোসেন, সাবেক উদ্ধতন সরকারী কর্মকর্তা মো. আজহার আলী তালুকদার, নিপোর্টের পরিচালক (গবেষণা) রফিকুল ইসলাম সরকার, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী মো. ওয়ালী উল্লাহ, বাংলাদেশ ওয়াস এ্যালায়েন্সের কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর অলক কুমার মজুমদার, রামগতি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আধ্যাপক আব্দুল ওয়াহেদ,পঞ্চগড়ের ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন প্রধান, কুলিয়ার চরের ইউপি চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান, চাঁদপুরের ইউপি চেয়ারম্যান হারুন-আর-রশিদ প্রমুখ।