ধর্মপাশায় সেচের অভাবে বোর ক্ষেত চৌচির

0
117

নুর উদ্দিন, ছাতক (সুনামগঞ্জ):

বিদ্যুৎ চাহিদা ৩মেগাওয়াটের মধ্যে ১.৫ মেগাওয়াটের কম সরবরাহ হয় ধর্মপাশায়। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৬-৭ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকলেও পল্লী-গ্রাম এলাকার অবস্থা আরো নাজুক। বিদ্যুৎ সেচের সাহায্যে বোরো ধান আবাদ করে কৃষক পড়েছে বিপাকে। পানির অভাবে জমি ফেটে চৌচির হয়ে ধান গাছ হলুদ বর্ণ ধারণ করছে।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ধর্মপাশা সদরসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চলতি বোরো মৌসূমে বিদ্যুৎ’র সাহায্যে  ৩৫০হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। বোরো ধান আবাদের জন্য রাত ১১ টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে বিদ্যুৎ সরবারাহ করার ঘোষনা সরকারের। কিন্তু বাস্তবে ২/৩ ঘন্টার বেশি বিদ্যুৎ থাকছেনা। বিদ্যুৎ’র এহেন পরিস্থিতিতে বর্তমানে বিদ্যুৎ গ্রাহকগণ বিদ্যুৎ’র বিকল্প ব্যবস্থা খোঁজছে। একশ ভাগ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা চালু হলে কি পরিস্থিতি দাঁড়াবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়ছে গ্রাহকগণ।
এ ব্যাপারে কৃষক আব্দুল সালাম, মনির, ফজল মিয়া, গিয়াস উদ্দিন জানান, বিদ্যুৎ’র ভয়াবহ লোডশেডিং এর কবলে পড়ে রোপনকৃত জমি ফেটে ধানের গাছ হলুদ বর্ণ ধারণ করেছে। এ অবস্থার বিদ্যুৎ’র উন্নতি না ঘটলে এলাকার কৃষকরা না খেয়ে থাকতে হবে।
বিদ্যুৎ’র ভয়াবহ লোডশেডিং এর কবলে পড়ে কৃষি ক্ষেত্রে যেমন অপূরনীয় ক্ষতি হচ্ছে তেমনি ভাবে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়াসহ বিভিন্ন কাজকর্মে লোকজন হতাশা ও ক্ষুব্দ হয়ে উঠছে । গত দুই মাস ধরে ধর্মপাশা উপজেলায় চলছে পল্লীবিদ্যুৎ’র সীমাহীন লোডশেডিং। মো.ইউনুছ আলী বলেন, পলীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বিদ্যুৎ বিতরণ পার্শবর্তী নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলার চেয়ে ধর্মপাশায় বিদ্যুৎ দেওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যমূলক আচরণ করে। পল্লী বিদ্যুতের এজিএম মো. মাসুদুর রহমান জানান, ধর্মপাশা উপজেলায় বিদ্যুৎ’র চাহিদা ৩ মেগাওয়াট। এর মধ্যে ১.৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ গ্রাহক পর্যায়ে পৌছেঁ। চাহিদার বিপরীতে ৫০% বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে লোডশেডিং হচ্ছে।