টান টান উত্তেজনার ম্যাচে জিতলো ঢাকা ডাইনামাইটস

0
18

আগের ম্যাচে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ঢাকা ডাইনামাইটসের ব্যাটসম্যানরা আজ যখন একে একে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যাচ্ছিলেন, তখনই ব্যাট হাতে খুলনা টাইটান্সের বোলারদের উপর চড়াও হন কাইরন পোলার্ড। শফিউলের বলে আউট হয়ে ফিরে যাবার আগেই এই ব্যাটসম্যান ২৪ বলে ৫৪ রান করে ম্যাচের চিত্রই বদলে দেন। সেই বদলে দেয়া দৃশ্যপটের ইতি টানেন জহরুল ইসলাম। ঢাকা ডিনামাইটস এক বল হাতে থাকতে ৪ উইকেটের জয় পায়।

পোলার্ড ঝড় থামার পরই ম্যাচটি দোদ্দুল্যমান হয়ে যায়। কখনও মনে হচ্ছিলো খুলনা জিততে যাচ্ছে, আবার কখনও মনে হচ্ছিলো জয় পাচ্ছে ঢাকা। ৭ বলে দরকার ১০ রান। স্ট্রাইকে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত আর বোলার তখন শফিউল ইসলাম । শফিউলের শেষ বলটিকে চার মেরে ঢাকা শিবিরে একটু স্বস্তি ফিরিয়ে আনেন মোসাদ্দেক।

এরপর ছয় বলে দরকার ছয় রান। ব্যাটসম্যান জহরুল ইসলাম। আর মাহমুদুল্লাহ বল তুলে দেন বিদেশি কার্লোস ব্রাথওয়েটের হাতে। প্রথম দুটি বলই ডট দেন এই ক্যারিবীয়। এরপরের বলটিতে লেগ বাই থেকে একটি রান নেন জহরুল। পরের বলেও একটি রান আসে মোসাদ্দেকের ব্যাট থেকে।

ওভারের পঞ্চম বলটি ব্রাথওয়েট করেন জহরুলকে। ব্রাথওয়েটের করা ইয়র্কারকে থার্ড ম্যান অঞ্চল দিয়ে ফোরে পরিণত করেই উইকেটের উপর বসে পড়লেন জহুরুল, আর উইকেটকে চুমু দিলেন। আর সাজঘর থেকে ঢাকার খেলোয়াড়রা ছুটলো মাঠের দিকে । জয়ের আনন্দের দৌড়।

জহুরুল ইসলাম করলেন হার না মানা ৪৫ রান। পোলার্ড আজকের জয়ের কারিগর হলে, জহরুল ছিলেন মূল নায়ক। ঢাকার হয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ করেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান (২০)।

খুলনার বোলারদের মধ্যে সফল ছিলেন শফিউল ইসলাম। তিনি নিয়েছেন ২টি উইকেট। আর মাহমুদুল্লাহ, আবু জায়েদ, আর্চার ও ধনঞ্জয়া একটি করে উইকেট নিয়েছেন।

এর আগে টস হেরে প্রথম থেকে ধীরগতিতেই খেলছিল খুলনার ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু শেষ দিকে এসে ঢাকার বোলারদের উপর তাণ্ডব চালান ক্যারিবীয় দানব ব্যাটসম্যান কার্লোস ব্রাথওয়েট। তার এই তাণ্ডবের উপর ভর করেই খুলনার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫ উইকেট হারিয়ে ১৫৬ রান।