ছাতকে ভাইব্রেটর মেশিনের ডাস্টে ভরাট হচ্ছে সুরমার

0
40

নুর উদ্দিন, ছাতক (সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি,পপুলার২৪নিউজ:

ছাতকে প্রায় শতাধিক পরিবেশ বিধ্বংসী যন্ত্রদানব ভাইব্রেটর (ওয়াশিং মেশিন) থেকে প্রতিদিন নির্গত প্রায় ৩শত মেট্রিকটন ডাস্টে ভরাট হয়ে যাচ্ছে সুরমা নদীর তলদেশ। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যে মারাত্মক প্রভাব পড়ার আশংকা রয়েছে। প্রশাসনের রহস্যজনক নীরবতায় অসাধুচক্র বীরদর্পে যন্ত্রদানব চালিয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়, ছাতক সদর ইউপি পৌরসভা ও দোয়ারাবাজার উপজেলা সদর, দোহালিয়াবাজার ও কাঞ্চনপুর এলাকায় অবৈধভাবে উত্তোলিত টিলার কাঁদা-মাঠিযুক্ত লাল পাথর ও ময়লা-আবর্জনাযুক্ত পাথর ধুঁয়ার জন্যে শতাধিক ওয়াশিং মেশিন ব্যবহৃত হচ্ছে সুরমা নদীতে। এরমধ্যে ছাতকের মাছুখালী, মল্লিকপুর ও আন্ধারীগাঁও এলাকায় প্রায় এককিলোমিটার দীর্ঘ সুরমা নদীর তীরে অর্ধশতাধিক ও দোহালিয়া বাজার, কাঞ্চপুর ও দোয়ারা উপজেলা সদর এলাকায় আরো অর্ধশতাধিকসহ শতাধিক ওয়াশিং মেশিনে প্রতিদিন প্রায় ৩শ’ মেট্রিকটন ডাস্টে নদীর তলদেশ ভরাট হচ্ছে। এতে সুরমা নদী নাব্যতা হারিয়ে আড়াইশ বছরের নৌ-পরিবহনসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্যে চরম প্রতিকূল পরিবেশ সৃষ্ঠি করছে।
ছাতক লাইনষ্টোন ইম্পোর্টার্স এন্ড সাপ্লায়ার্স গ্রুপ কার্যালয়ে গ্রুপের প্রেসিডেন্ট আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী বলেন, ওয়াশিং মেশিনের ডাস্টে নদীর পানি দুষিত ও তলদেশ ভরাট হয়ে দিন দিন নাব্যতা হারাচ্ছে।
ছাতক পাথর ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি জয়নাল চৌধুরী বলেন, পানি দূষিত হওয়ায় নদীর মাছের উপর প্রভাব পড়ছে। নদী ভরাট হলে ব্যবসা-বানিজ্যসহ মানুষের সার্বিক জীবন যাত্রায় মারাত্মক প্রভাব পড়তে পারে এবং ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ হলে আমদানী-রপ্তানীসহ সরকারের রাজস্ব আয়ের একটি বড়খাত বন্ধ হওয়ার উপক্রম রয়েছে।
ছাতক পাথর ব্যবসায়ি সমবায় সমিতির সহ-সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান অদুদ আলম বলেন, ওয়াশিং মেশিন বা ভাইব্রেটর পরিবেশ বিধংসী যন্ত্রদানব। একটিতে একশ মেট্রিনটন সাধারণ ময়লাযুক্ত পাথর ওয়াশ করলে নদীর তলদেশে কমপক্ষে ৫ মেট্রিনটন আস্তরণ (ডাস্ট) পড়ে। কিন্তু পাথরে ময়লার পরিমান বেশি হলে প্রতি একশ মেট্রিনটনে কমপক্ষে ১০মেট্রিনটন আস্তরণ পড়তে পারে।
ছাতক উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরি বকুল বলেন, সরকার শীঘ্রই এসব বন্ধের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে সুরমা নদী ভরাট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রভাব পড়তে পারে।