গোপালগঞ্জে সরগরম দর্জিপাড়া, ব্যস্ত সময় পার করছেন দর্জি শ্রমিকেরা

0
12


হায়দার হোসেন গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি,পপুলার২৪নিউজ:

সামনে ঈদ তাই সরগরম এখন গোপালগঞ্জের দর্জিপাড়া। ব্যস্ত সময় পার করছেন দর্জি শ্রমিকেরা। বিশ্রাম নেওয়ার যেন কারো ফুরসত নেই। কাষ্টমারের কাছ থেকে নেয়া অর্ডার সময়মত ডেলিভারী দিতে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। ঈদের বেশ কিছুদিন আগেই অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দেবেন এমনটি জানিয়েছেন মলিক ও শ্রমিকেরা।
গোপালগঞ্জ জেলা শহরের দর্জিপাড়া ঘুরে দেখাগেছে, ইতিমধ্যে পেরিয়ে গেছে রোজার অর্ধেক। জেলা শহরের বাসিন্দা বেড়েছে, বেড়েছে আর্থিক সচ্ছলতা। আর তার সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ঈদের কেনাকাটা এবং পোষাক তৈরীর কাজ। তাই গোপালগঞ্জের ঈদের বাজার এখন জমজমাট। পরিবারের জন্য কিনছেন নতুন জামা কাপড়। বিশেষ করে যারা সিট কাপড় দিয়ে পাশাক তৈরী করবেন এখন তাদের আনাগোনাই এখন বেশী। আগেভাগে কাপড় কিনে না দিতে পারলে সময়মত তা ডেলিভারী পাবেন না এ আশংকায় সকলেই ছুটছেন দর্জিবাড়ি।
তাই ক্রেতাদের পদচারণায় এখন মুখোরিত দর্জিপাড়া। দিন যত যাচ্ছে দর্জি শ্রমিকদের কাজের চাপও তাই বাড়ছে। মেশিনের খট খট শব্দে মুখোরিত হয়ে উঠেছে দর্জিপাড়া। গত বছরের থেকে এবছর কাজের চাপ বেশী। তাই নাওয়া-খাওয়া ভূলে দিন রাত কাজ করে পোশাক তৈরী করে যাচ্ছেন শ্রমিকেরা। যে কোনভাবে সময়মত লোকজনকে পোষাক তেরী করে তা ডেলিভারী দিতে হবে। এদিকে প্রচুর পরিমানে অর্ডার হওয়ায় শ্রমিকদের সাথে সাথে ঘুম নেই দোকান মালিকদেরও। কিভাবে কাপড় ডেলিভারী দিবেন সে চিন্তায় রয়েছেন তারা। অধিক পরিমানে অর্ডার থাকায় দুই-একদিনের মধ্যে অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিবেন তারা।
ক্রেতারা জানান, মার্কেটে পছন্দমত পোশাক না পাওয়ায় কাপড়ের দোকান থেকে কাপড় কিনে দর্জিদের কাছে জামা-প্যান্ট বানাতে দিচ্ছি। যাতে ঈদের আগেই পেতে পারি। কিন্তু অর্ডার বেশি থাকায় অনেক টেইলার্স অর্ডার নিচ্ছে না। ফলে বিভিন্ন দোকানে ঘুরতে হচ্ছে আমাদের।
দর্জি ভবেশ বিশ্বাস বলেন, শেষ সময়ে ক্রেতারা দর্জিপাড়ার দিকে বেশি ছুটছেন। কাপড়ের দোকান থেকে কাপড় কিনে ঈদে নিজের পছন্দমত পোশাক বানাতে চাইছেন। ফলে প্রচুর চাপ বেড়ে গেছে। নাওয়া-খাওয়া ভুলে দিন রাত কাজ করতে হচ্ছে। যে কোন ভাবে সময়মত লোকজনকে পোষাক তেরী করে ডেলিভারী দিতে হবে।
দোকান মালিক লিটন সাহা জানান, পোশাক তৈরী করতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। প্রচুর পরিমানে অর্ডার পাওয়ায় অন্য অর্ডারগুলো ছেড়ে দিতে হচ্ছে। যা রয়েছে তা ঠিকমত ডেলিভারি দিতে পারব কিনা তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছি। তাই আপাতত অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছি।